ইসালে সওয়াবের বিধান

ইবনে কায়্যিম বলেছেনঃ ইবাদাত দুই ধরণের, আর্থিক এবং শারীরিক। যখন হুকুমদাতা আমাদের জানিয়েছেন যে সাদকার সওয়াব মৃতের কাছে পৌঁছায়, তিনি ইঙ্গিত করেছেন যে আর্থিক ইবাদাত তাদের নিকট পৌঁছায়, এবং যখন তিনি আমাদের জানিয়েছেন যে, রোযার সওয়াব তাদের নিকট পৌঁছায়, তিনি ইঙ্গিত করেছেন যে শারীরিক ইবাদাত তাদের নিকট পৌঁছে। তিনি আমাদের আরও জানিয়েছেন যে, হজের সওয়াব তাদের নিকট পৌঁছায়- যা আর্থিক এবং শারীরিক ইবাদাতের সমন্বয়। ফলে এই তিন ধরণকেই নুসুস এবং আকল সমর্থন করে।”

শাইখ জন স্টারলিং বলেছেনঃ

মুসলিম কর্তৃক আদায়কৃত যে কোন ভালো আমলের পুরোটা কিংবা অর্ধেক কোনো জীবিত বা মৃত মুসলিমের জন্য দান করলে, সেই সাওয়াব পৌঁছাবে। যদিও এই সাওয়াবের ধরণ অজানা। যেমন : নফল হজ, কুরআন তিলওয়াত, সালাত, সিয়াম এবং সদকা ইত্যাদি। ইমাম আহমদ বলেন, প্রত্যেক ভালো আমল, যেমন : সদকা, সালাত ইত্যাদি, মৃতের নিকট পৌঁছায়, যা বর্ণিত হয়েছে তা অনুসারে।

সূত্র : শারহুল মুনতাহা ও কাশশাফুল ক্বিনা‘

তবে ব্যতিক্রম ক্ষেত্র হচ্ছে, মৃতের হয়ে ফরয সালাত পড়া হয় না। (শারহুল উমদাহ, শাইখ হাতেম আল-হাজ)

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *