কিতাব পরিচিতি- মুখতাসার আল খিরাকি

কিতাবের নামঃ মুখতাসার আল-খিরাকি

এটি মাযহাবের প্রথম ফিকহি মতন। রচয়িতা হচ্ছেন আবুল কাসিম উমর ইবনে আল-হুসেইন ইবনে আবদুল্লাহ ইবনে আহমদ আল-খিরাকি আল-বাগদাদি/দামেস্কি [দামস্কে উনাকে দাফন করা হয়]।শাইখ আল-খিরাকি তাঁর মুখতাসারটিকে ইমাম আল-মুযানি আশ-শাফেয়ীর [র] মুখতাসারের মত করে বিন্যস্ত করেন।আবু ইসাক আল-বারমাকির গণনা মতে এই মুখতাসারে মাসায়েলের সংখ্যা ২৩০০। ইমাম ইবন আব্দুল হাদি বলেছেন যে ‘ইয-উদ্দিন আল-মিসরি বলেছেন- “আমি মুখতাসারের ৩০০ এর অধিক শারহ দেখেছি।”

কিছু উল্লেখযোগ্য শারহঃ

১। শারহ আল-মুখতাসার, মাম আল-খিরাকি [মৃত্যুঃ ৩৩৪ হিজরি]২। শারহ আল-খিরাকি, আবু ইসাক ইব্রাহিম ইবনে আহমদ [মৃত্যুঃ ৩৬৯ হিজরি]৩। শারহ আল-খিরাকি, আল-কাযি আবু ইয়ালা আল ফাররা’ [মৃত্যুঃ ৪৫৮]৪। কিতাব আল-মুকনি ফি শারহ আল-খিরাকি, আবু আলি আল-হাসান ইবনে আহমদ আল বান্না [মৃত্যুঃ ৪৭১ হিজরি] (৪ ভলিউম)৫। আল-মুগনি ফি শারহ মুখতাসার আল খিরাকি, মুওয়াফফাকউদ্দিন ইবনে কুদামাহ আল-মাকদিসি [মৃত্যুঃ ৬২০ হিজরি]
*এটি হচ্ছে ফিকহশাস্ত্রের অন্যতম বিখ্যাত কিতাবই বলা চলে। এখানে ইমাম ইবনে কুদামাহ অন্যান্য ইমামদের মত এনে দালিলিক পর্যালোচনা করেছেন। অন্যান্য মাযহাবের বড় বড় আলিমগণ এর প্রশংসা করেছেন। হাম্বলিরা এই কিতাবের উপর আবার মুখতাসার, নাযম, হাশিয়া প্রভৃতি রচনা করেছেন।
৬। শারহ আল-যারকাশি আলা আল-খিরাকি, মুহাম্মাদ ইবনে আবদুল্লাহ আল-যারকাশি [মৃত্যুঃ ৭৭২ হিজরি]৭। শারহ আল-মুখতাসার, ইবনে আকিল৮। কিফায়াত আল-মুরতাকি ইলা ফারাইদ আল-খিরাকি, ইবনে বাদরান [মৃত্যুঃ ১৩৪৬ হিজরি]

নাযমঃ

কিছু আলিমগণ এই মুখতাসারকে নাযমে [পদ্যে] রুপান্তরিত করেছেন, যেমনঃ১। নাযম মুখতাসার আল খিরাকি, জাফর ইবনে আহমদ সিরাজ আল-বাগদাদি [মৃত্যুঃ ৫০০ হিজরি]২। নাযম মুখতাসার আল-খিরাকি, মাক্কি ইবনে হাবিরাহ আল-বাগদাদি [মৃত্যুঃ ৫৬৭ হিজরি]৩। নাযম আল-ইবাদাত মিন আল-খিরাকি, মুহাম্মাদ আল মসিলি [মৃত্যুঃ ৬৫৬ হিজরি]

গারিবঃ

কিছু আলিমগণ মুখতাসারের দুর্বোধ্য কিছু শব্দের ব্যাখ্যা রচনা করেছেন, যেমনঃ১। শারহ আল-গারিব আলফায আল-খিরাকি, আবুল মাহাসিন মুহাম্মাদ ইবনে আব্দুল বাকি [মৃত্যুঃ ৫৭১ হিজরি]২। আদ-দূর আল-নাকি ফি শারহ আলফায আল খিরাকি, ইউসুফ ইবনে আব্দুল হাদি [মৃত্যুঃ ৯০৯ হিজরি] (২ ভলিউম)।

মুখতাসারের মুখতাসারঃ

কিছু আলিমগণ আবার এই মুখতাসারকেই সংক্ষেপিত করেছেন, যেমনঃ আহমদ ইবনে ইব্রাহিম ইবনে নাসরুল্লাহ আল-বাগদাদির [মৃত্যুঃ ৮৭৬ হিজরি] মুখতাসার।

তাখরিজঃ

কিছু আলিমগণ এর হাদিসগুলোর তাখরিজ রচনা করেছেন,যেমনঃ ইমাম ইউসুফ ইবনে আব্দুল হাদি [মৃত্যুঃ ৯০৯ হিজরি]
কিছু আলিমগণ আবার এই কিতাবে কিছু মাস’আলা যুক্ত করেছেন, যেগুলো মূল কিতাবে আসেনি, যেমন ইবনে কুদামাহর আল-হাদি/উমদাত আল-হাযিম।
বইটি যেহেতু একেবারে প্রথমদিকের কিতাব, কিছু মাস’আলায় বইটির মত মু’তামাদ নয়। তবুও হাম্বলিদের প্রথম মতন হওয়ায় ঐতিহাসিকভাবে বইটি বেশ গুরুত্ব বহন করে এসেছে। ইবনে বাদরান তাঁর মাদখালে বলেছেনঃ মাযহাবের আর কোনো কিতাবের প্রতি এতটা গুরুত্ব দেওয়া হয়নি।
শাইখ আনাস খালিদ নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটিতে পিএইচডির সময়ে বইটার ইংলিশে অনুবাদ করেন। নেটে সার্চ দিলেই পাওয়া যাবে আশা করি।

উৎসঃ মাদখাল বকর আবু যাইদ (সংক্ষেপিত)

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *