নারীদের জন্যে স্বামীর আনুগত্যঃ

প্রশ্নঃ আমি শুনেছি যে ইমাম আহমদ এবং অন্যান্য আলিমরা বলেছেন যে, নারিরা ঘরের কাজ করতে বাধ্য নন এবং কিছু আলিম এমনও বলেন যে, তারা যদি সেটা করতে নারাজ হয়, তাদেরকে স্বামী জোরপূর্বক বাধ্য করতে পারবেন না। আবার একই সময়ে আমরা জানি যে, নারীদের স্বামীর বাধ্য হওয়া ওয়াজিব। আমরা কিভাবে এই দুটোর মধ্যে সমন্বয় করব? স্বামী যদি স্ত্রীকে ঘরের কাজ করতে বলে, স্ত্রীর জন্যে কি তা শোনা ওয়াজিব? কতটুক পরিসরে স্ত্রীকে বাধ্য থাকতে হবে?

উত্তরঃ আলহামদুলিল্লাহ। বিয়ের ক্ষেত্রে সুষম মানদণ্ড হচ্ছে স্বামী স্ত্রী উভয়ে দয়া এবং ভালো [ব্যবহার/কাজ ইত্যাদি] দ্বারা একে অন্যের সাথে চলবে। আল্লাহ্‌ কুর’আনে বলেছেনঃ ‘নারীদের সাথে সদ্ভাবে জীবন-যাপন কর।’ [আল কুর’আন ৪ঃ১৯] ফিকহের মাস’আলা সবসময় বিয়ের জন্যে সাধারণ/সার্বজনীন নিয়ম হিসেবে নেওয়া উচিত নয়। বরং, নিয়ম হচ্ছে দয়া এবং উত্তম ব্যবহার। ফিকহের বিস্তারিত মাস’আলায় যাওয়ার আগে এই ব্যাপারটা সবসময় মাথায় রাখা দরকার।

এটা মাথায় রেখে, জোর দিয়ে বলছি যে স্ত্রীর জন্যে রান্না করা এবং ঘরবাড়ি পরিস্কার করা ফরয নয়, তবে এগুলো তাঁর জন্যে করা মুস্তাহাব, কারণ মানুষের মধ্যে এটা কাস্টম [প্রচলন/প্রথা] যে, নারীরা ঘরের কাজগুলোর ব্যাপারে যত্নশীল হয়ে থাকে। এটা মাজহাবের অফিসিয়াল/মুতামাদ অবস্থান। [শারহ আল মুনতাহা (৫/৩১১) এবং আল ইকনা (৩/১৪৬)]

মাযহাবে আরেকটি মত আছে যেটা ইমাম ইবন তাইমিয়া এবং শাইখ আব্দুর রহমান আস সাদি অধিকতর সঠিক বলে মনে করেছেন, মতটি অনুসারে প্রচলিত [customary] কাজগুলো যেমন, রান্না করা, পরিস্কার করা এবং ঘরের যত্ন নেওয়া পরিমিত/যৌক্তিক পরিসরে স্ত্রীর জন্যে ওয়াজিব। এর মানে এই নয় যে, ঘর সবসময়ই নিখুঁত অবস্থায় থাকবে, অথবা স্ত্রী সারাক্ষণই রান্না করতে থাকবে। তাঁর জন্যে সেটুকু করা ওয়াজিব, যেটুকু তাঁর [সমাজের] মানুষের মধ্যে এবং তাঁর অবস্থা অনুসারে পরিমিত।

কোন আলিম অনুসারেই স্ত্রীর জন্যে স্বামীর আনুগত্য করা ‘সার্বজনীন বা সর্বাবস্থায় প্রযোজ্য’ নয়। মাযহাবগুলো ব্যাখ্যা করেছে কখন স্ত্রীর জন্যে তা ওয়াজিব এবং কখন তা নয়।
এতদসত্ত্বেও, স্বামী-স্ত্রীর একেবারে শুধু [ওয়াজিব] দায়িত্বটুকু পুরণ না করে, উভয়েরই পরিমিত এবং প্রকৃষ্টতা প্রদর্শন করা উচিত তাদের সামর্থ্য অনুসারে। যদি স্ত্রী ঘরের সব কাজই করতে প্রত্যাখ্যান করে এবং স্বামী তাঁর স্ত্রীকে তার পরিবারের সাথে দেখা করতে যেতে বাঁধা দেয়, তাহলে উভয়েই [ইসলামের] আইনের দৃষ্টিতে জায়েজ, কিন্তু এই ধরণের বিয়ে সফল হবে না এবং এর ব্যাপারে ইসলাম নির্দেশ দেয়নি। স্বামী স্ত্রী উভয়েই তাদের বিয়েকে সফল করার জন্যে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা উচিত, এমনকি সেটার অর্থ পরিমিত/যৌক্তিক পরিসরে আপস করা [প্রয়োজন] হলেও, কারণ শক্তিশালী ঘরের মাধ্যমে একটি স্থিতিশীল সমাজ পাওয়া যায়।

উত্তর দিয়েছেন শাইখ জাহেদ ফেত্তাহ।

Thehanbalimadhhab.com সাইট থেকে নেওয়া।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *