প্রশ্নঃ হাম্বলি মাযহাবে দাঁড়ির বিধান কি?

প্রশ্নঃ হাম্বলি মাযহাবে দাঁড়ির বিধান কি?

উত্তরঃ শাইখুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া বলেন- “দাঁড়ি রাখা ওয়াজিব এবং একমুষ্টির অতিরিক্ত অংশ ছাঁটা জায়েজ।” শাইখ ইউসুফ বলেছেন যে এই মাস’আলায় শাইখুল ইসলামের মত হাম্বলি মাযহাবে গ্রহণ করা হয়েছে। ফলে মাযহাবের মুল গ্রন্থগুলো থেকে তিনটি জিনিস পাওয়া যায়-

১। দাঁড়ি কোনভাবে না ছেঁটে পুরো ছেড়ে দেওয়া মুস্তাহাব।
২। দাঁড়ি একমুষ্টির পর ছাঁটা “জায়েজ”।
৩। দাঁড়ি মুণ্ডন বা শেইভ করা হারাম।

এই ব্যাপারে উস্তাদ আবু ইব্রাহিম বলেনঃ

“দাঁড়ির কোন অংশই না ছেঁটে ছেড়ে দেওয়া মুস্তাহাব…’যতক্ষণ না দৈর্ঘ্য অপ্রীতিকর হয়ে উঠে’। শেইভ করা হারাম তবে একমুষ্টির বাড়তি অংশ ছাঁটলে গুনাহ নেই।”

[কাশফ আল-মুখাদারাত]

কিন্তু উপরোক্ত পয়েন্টগুলোর মধ্যে একমুষ্টির কমে ছাঁটার ব্যাপারটি আসেনি। তাই মাযহাবের মুতামাদ গ্রন্থগুলোতে “একমুষ্টির কমে” ছাঁটার ব্যাপারে সরাসরি কিছু আসে নাই।

শাইখ ইউসুফ বিন সাদিক আল-হাম্বলি বলেছেন-

“হাম্বলি মাযহাবে দাঁড়ি পুরোপুরি ছেড়ে দেওয়া মুস্তাহাব, দাঁড়ি একমুষ্টির পর ছাঁটা জায়েজ, এবং শেভ করা হারাম। একমুষ্টির কমে ছাঁটার ব্যাপারে কিতাবগুলোতে বলা হয় নাই, তবে একটি কিতাবে এসেছে, তা হচ্ছে শারহে ওয়াজিয [যেখানে বলা হয়েছে এটা মাকরুহ]। তবে এই কিতাবের লেখক মাযহাবের অথোরিটি-টাইপ কেউ নন, [উদাহরণস্বরূপ] উনি ইবনে কুদামাহ অথবা শাইখুল ইসলামের মত নন, তাই যে বিষয়ে অন্য আলিমরা বলেননি, সেই বিষয়ে উনার একার কথাকে সরাসরি মাযহাবের মুতামাদ বলে দেবার মত নয়। তবে, কিতাবটি বুরহানুদ্দিন ইবনে মুফলিহকে পড়ে শুনানো হয়েছিল, এবং তিনি তা অ্যাপ্রুভ করেন। আর বুরহানুদ্দিন ইবনে মুফলিহ মাযহাবের অন্যতম আলিম। তাই, এইক্ষেত্রে এটাই মাযহাবের মুতামাদ হওয়া উচিত- একমুষ্টির নিচে দাঁড়ি ছাঁটা মাকরুহ। আর [মিনিমাম] ওয়াজিব দাঁড়ি হচ্ছে যেটা দৃশ্যমান হয়।”

উস্তাদ মাজেদ জাররার একমুষ্টির নিচে ছাঁটার ব্যাপারে বলেন-

“এই ব্যাপারে মাযহাবের মুতামাদ গ্রন্থগুলোতে বলা হয়নি। ইবনে কুন্দুস তার হাশিয়ায় বলেছেন- “এটি মাকরুহ, তবে ছাঁটা যত বৃদ্ধি পেতে থাকবে, কারাহা [অপছন্দনীয়তা] তত বাড়তে থাকবে। তবে তিনি এটিকে নিজস্ব ব্যাখ্যা বলেছেন।” [দ্রষ্টব্যঃ শারহে ওয়াজিযে কারাহা বৃদ্ধির ব্যাপারটি আসেনি।]

মিনিমাম দাঁড়ি বলতে শাইখ ইউসুফ বলেছেন “যেটা দৃশ্যমান হয়”- এটা কতটুকু? এই ব্যাপারে উস্তাদ জো ব্রাডফোর্ড বলেছেন- “দাঁড়ির একটি বডি/শরীর থাকতে হবে।” যার মানে হচ্ছে, উদাহরণস্বরূপ- অনেকের শেইভ না করলে সকালবেলায় হালকা খোচা খোচা দাঁড়ি উঠে- এমন দাঁড়ি যথেষ্ট নয়।

তেমনি দাঁড়ির কিছু অংশ রেখে বাকিটা শেইভ করলে, মানে উদাহরণস্বরূপ, ছাগল-দাঁড়ি বলে যেটাকে আমরা চিনি- এমন দাঁড়িও যথেষ্ট নয়- শাইখ ইউসুফ বলেছেন।

তাই উপসংহারে বলা যেতে পারে মাযহাব অনুসারে-

দাঁড়ি রাখা – ওয়াজিব।
পুরোপুরি ছেড়ে দেওয়া -মুস্তাহাব।
একমুষ্টির বাড়তি অংশ ছাঁটা- জায়েজ ।
একমুষ্টির কমে ছাঁটা- মাকরুহ ইনশা আল্লাহ্‌।
শেইভ বা মুণ্ডন- হারাম।

আল্লাহ্‌ই ভালো জানেন।

[একাধিক উত্তরের আলোকে সংকলিত, সংক্ষেপিত ও পরিমার্জিত ]

উত্তরদাতাঃ উস্তাদ মাজেদ যাররার, শাইখ ইউসুফ বিন সাদিক আল-হাম্বলি, উস্তাদ জন স্টারলিং

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *