বিভিন্ন ধরণের নাজাসাহ – বিদায়াতুল আবিদ

[অনুবাদের সাথে <>, [] এবং ফুটনোটে বিভিন্ন কিতাব এবং দরস থেকে বুঝার সুবিধার্থে বিভিন্ন জিনিস সংযুক্ত করা হয়েছে। বাকিটা মতনের অনুবাদ]

তরল নেশাজাতীয় দ্রব্য এবং পাখি ও পশুর মধ্যে বিড়ালের চেয়ে বড়1 প্রাণী – নাজিস।

মানুষ, মাছ এবং ফড়িং2 বাদে সকল মৃত জীব – নাজিস।

প্রথা অনুসারে সামান্য পরিমাণ রাস্তার কাদা, যদি তার অপবিত্রতার ব্যাপারে জানা থাকে তা উপেক্ষিত3। আর না হলে, সেটা তাহির।

তাহির পশুর অবশিষ্টাংশ, অর্থাৎ তাদের খাবার এবং পানীয়ের বেঁচে যাওয়া অংশ, মাকরুহ নয়4, তবে ছেড়ে রাখা মুরগি ও ইঁদুর ব্যতীত।

যদি বিড়াল বা অনুরুপ কিছু অথবা কোনো শিশু, নাজাসাত খাওয়ার পর, অল্প পরিমাণ পানি <বা পানীয়> পান করে, তা পবিত্র; এমনকি [সে নাজাসাত খাবার পর সেই জায়গা] ত্যাগ করার পূর্বে হলেও।


ফুটনোট:

1 যেমন, সিংহ, বাঘ ইত্যাদি।

2 এবং অনুরুপ পতঙ্গ, যাদের মধ্যে দিয়ে রক্ত প্রবাহিত হয়।

3 কারণ এটা থেকে দূরে থাকা কঠিন, অনুরুপ মাসআলা দেখা যায় ইস্তিজমারের ক্ষেত্রে- কাগজ বা মাটি দিয়ে পবিত্রতা অর্জনের পরও সামান্য কিছু অংশ থেকে যায় এবং সেটা উপেক্ষা করা হয়।

4 অর্থাৎ তারা মানুষের খাবার থেকে বা পাত্র থেকে পানি পান করলেও সমস্যা নেই।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *