System Admin

ইমাম মারি আল-কারমি (র)

আল্লামা মারঈ বিন ইউসুফ আল-কারমি আল-আযহারি ছিলেন ১৬০০ সালের দিকের একজন প্রখ্যাত হাম্বলি আলেম। তিনি ফিলিস্তিনে তুলকার্ম শহরে জন্মগ্রহণ করেন, এরপর বায়তুল মাকদিসে ইলমের জন্যে সফর করেন, তারপরে মিশরে। এরপর আযহারের মসজিদ এবং তুলুনি মসজিদে শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। একাধারে তিনি ছিলেন ফকিহ, উসুলি, মুফাসসির, ব্যকরণবিদ, মুহাদ্দিস, ইতিহাসবিদ ইত্যাদি। তাঁর বহুপারদর্শীতার ছাপ লেখার মধ্যেও …

ইমাম মারি আল-কারমি (র) Read More »

মাজদউদ্দিন ইবনে তাইমিয়া (রহিমাহুল্লাহ)

মাজদউদ্দিন ইবনে তাইমিয়া (রহিমাহুল্লাহ) (৫৯০-৬৫৩ হিজরি): শাইখুল ইসলাম তাকিউদ্দিন ইমাম ইবনে তাইমিয়াকে (র) প্রায় সবাইই চিনি আমরা। তবে শামভিত্তিক তাইমি পরিবারই ছিল আলিমদের পরিবার। তাকিউদ্দিন ইবনে তাইমিয়া ছাড়া এই পরিবারে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আলেম হলেন হাররানের ফকিহ শাইখুল হানাবিলা মজদউদ্দিন আবুল বারাকাত আব্দুস সালাম ইবনে তাইমিয়া। তিনি তাকিউদ্দিন ইমাম ইবনে তাইমিয়ার দাদা (কমেন্টের ছবি দ্রষ্টব্য)। তিনি …

মাজদউদ্দিন ইবনে তাইমিয়া (রহিমাহুল্লাহ) Read More »

হাম্বলী মাযহাবে মুসহাফ সম্পর্কিত বিধান

হাম্বলী মাযহাবে মুসহাফ সম্পর্কিত বিধান ◼️মুসহাফ সম্পর্কিত জায়িয কাজ: ~মুসহাফে সুগন্ধি দেয়া~চুম্বন করা ◼️মুসহাফ সম্পর্কিত মাকরূহ কাজ: ~মুসহাফের দিকে পা প্রসারিত করা~মুসহাফের দিকে পৃষ্ঠপ্রদর্শন করা~এর উপর দিয়ে পা ফেলা~স্বর্ণ কিংবা রৌপ্য দিয়ে শোভাবর্ধন করা।অন্য ইলমের কিতাবও এগুলো দিয়ে শোভাবর্ধন করা হারাম৷ ◼️মুসহাফ সম্পর্কিত হারাম কাজ: ~অপবিত্র কোনোকিছু দিয়ে মুসহাফ স্পর্শ করা~দারুল হারবে মুসহাফ নিয়ে ভ্রমণ …

হাম্বলী মাযহাবে মুসহাফ সম্পর্কিত বিধান Read More »

যাদুল মুস্তাকনি

লেখকঃ শারফুদ্দিন মুসা ইবনে আহমদ ইবনে মুসা ইবনে সালিম ইবনে ঈসা আল-মাকদিসি আল-দিমিশকি (মৃত্যুঃ ৯৬৮ হিজরি) আরব উপদ্বীপে, বিশেষ করে নজদে এই কিতাব পাঠদানের জন্যে জনপ্রিয়। ইবনে কুদামাহর ‘আল-মুকনি’ গ্রন্থের সংক্ষিপ্ত করে এই কিতাব লেখা হয়েছে। তবে কিছু ক্ষেত্রে ইমাম হাজ্জাউই বাড়তি অংশ যোগ করেছেন, যা মূল কিতাব ‘আল-মুকনি’তে নেই। এই কিতাবের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, …

যাদুল মুস্তাকনি Read More »

দলিলুত তলিব

লেখকঃ ইমাম মারই’ বিন ইউসুফ আল-কারমি আল-আযহারী আল-হাম্বলি (মৃত্যুঃ ১০৩৩ হিজরি) কিতাবটির বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো এর বিন্যাস গোছালো। ইবারত সহজ এবং পরিষ্কার, বুঝতে বেশি বেগ পেতে হয় না। সামান্য কিছু মাসায়েল ছাড়া মাযহাবের মুতামাদ অনুসারে রচিত। বিভিন্ন বা’বে প্রকারভেদ, শর্ত,আরকান ইত্যাদি অনেকবার সহজভাবে উল্লেখ করা হয়েছে, ফলে ছাত্রের জন্যে বোঝা সহজ হয়। হাম্বলি আলেমরাও এই কিতাবের …

দলিলুত তলিব Read More »

কাফি আল–মুবতাদি

লেখকঃ শাইখ মুহাম্মাদ বিন বদর উদ্দিন ইবনে বালবান আল-বা’লি (মৃত্যুঃ ১০৮৩ হিজরি)। এই কিতাব থেকে সংক্ষিপ্ত করে “আখসার আল-মুখতাসারাত” লেখা হয়েছে, পূর্বে যেমন বলা হয়েছে। তবে এখানে বেশ কিছু মাসআলা আছে যেগুলো আখসারে আসেনি। যেমনঃ উযুর সিফাত, গোসলের সিফাত ইত্যাদি। কিতাবটি সাধারণভাবে মাযহাবের মুতামাদ অনুসারে রচিত, অল্প কিছু মাসায়েলে খিলাফ আছে। ইমাম ইবনে নাজ্জারের চেয়ে …

কাফি আল–মুবতাদি Read More »

উমদাতুত তলিব

লেখকঃ শারিহুল মাযহাব ইমাম মনসুর ইবনে ইউনুস আল-বুহুতি আল-মাসরি (মৃত্যুঃ ১৫১ হিজরি) জীবনের শেষদিকে এসে (১০৫০ হি) ইমাম তিনি মাযহাবের মাশহুর অনুযায়ী এই মতন রচনা করেন। আকারে আখসার আল মুখতাসারাতের চেয়ে বড়। কিতাবটির প্রত্যেক বাব বা চ্যাপ্টারে অনেকগুলো মৌলিক মাসায়েলে রয়েছে। ব্যাখ্যাগ্রন্থঃ শারহঃ ১। হিদায়াতুর রাগিব ফি শারহি উমদাতিত তলিব– লিখেছেন শাইখ উসমান ইবনে আহমদ ইবনে কাইদ …

উমদাতুত তলিব Read More »

আখসার আল–মুখতাসারাত

লেখকঃ শাইখ মুহাম্মাদ বিন বদরউদ্দিন বিন বালবানি আল বা’লি আল-দিমিশকি (রহিমাহুল্লাহ) [মৃত্যুঃ ১০৮৩ হিজরি]।  শাইখ আল-বালবানির নিজের লেখা আরেকটি কিতাব ‘কাফি আল-মুবতাদি’ থেকে সংক্ষিপ্ত করে এই কিতাব লিখেছেন। কিতাবটির কিছু বৈশিষ্ট্যঃ ১। সহজ এবং সংক্ষিপ্ত ইবারত। ২। কিতাবটি ছোট হলেও এর থেকে বড় কিছু কিতাব থেকে বেশি অর্থবোধক এবং ফায়দা বিদ্যমান। ব্যাখ্যাগ্রন্থঃ শারহঃ ১। কাশাফআল–মুখাদারাত, লেখকঃ আব্দুর …

আখসার আল–মুখতাসারাত Read More »

নারীর রক্ত – বিদায়াতুল আবিদ

[অনুবাদের সাথে <>, [] এবং ফুটনোটে বিভিন্ন কিতাব এবং দরস থেকে বুঝার সুবিধার্থে বিভিন্ন জিনিস সংযুক্ত করা হয়েছে। বাকিটা মতনের অনুবাদ] [হায়েয] হায়েয [মাসিক] শুরুর সর্বনিম্ন বয়স হচ্ছে ৯ বছর এবং সর্বোচ্চ ৫০ বছর। গর্ভবতী নারীর মাসিক হয় না। মাসিকের সর্বনিম্ন সময়সীমা হচ্ছে একদিন একরাত এবং দীর্ঘতম সময়সীমা ১৫ দিন; সাধারণত এটি ছয় বা সাতদিন …

নারীর রক্ত – বিদায়াতুল আবিদ Read More »

বিভিন্ন ধরণের নাজাসাহ – বিদায়াতুল আবিদ

[অনুবাদের সাথে <>, [] এবং ফুটনোটে বিভিন্ন কিতাব এবং দরস থেকে বুঝার সুবিধার্থে বিভিন্ন জিনিস সংযুক্ত করা হয়েছে। বাকিটা মতনের অনুবাদ] তরল নেশাজাতীয় দ্রব্য এবং পাখি ও পশুর মধ্যে বিড়ালের চেয়ে বড়1 প্রাণী – নাজিস। মানুষ, মাছ এবং ফড়িং2 বাদে সকল মৃত জীব – নাজিস। প্রথা অনুসারে সামান্য পরিমাণ রাস্তার কাদা, যদি তার অপবিত্রতার ব্যাপারে …

বিভিন্ন ধরণের নাজাসাহ – বিদায়াতুল আবিদ Read More »