উলামা

শাইখ ড. ফারিস আল-ফালিহ

শাইখ ড. ফারিস ফালিহ আল-খাযরাজি শাইখ ড. ফারিস ফালিহ ইরাকের মসুল শহরে জন্মগ্রহণ করেছেন। তিনি ইরাকের আলিমগণের সাথে ফিকহ, উসুলুল ফিকহ, ব্যকরণ, নাহু, বালাগাহ, মানতিক, ফারায়েয এবং অন্যান্য শাখার জ্ঞান অর্জন করেন। তাঁর শিক্ষকগণের মধ্যে রয়েছে শাইখ উসামাহ ইবনে জসিম আল-হাম্বলি, শাইখ সা’দ আল মসুলি, শাইখ হাযিম ইবনে মুহাম্মাদ আব্দুর রাযযাক, শাইখ সাবির মাহমুদ আল-যিবারি, …

শাইখ ড. ফারিস আল-ফালিহ Read More »

শাইখ ড. সায়্যিদ আল-হাম্বলি

শাইখ মুহাম্মাদ ড. সায়্যিদ আল-হাম্বলি শাইখ সায়িদ পিএইচডি সম্পন্ন করেছেন এবং জামিয়া আল-আযহারের শাইখুল হানাবিলা বা হাম্বলিদের প্রধান শিক্ষক। তিনি একাধিক ফুকাহার নিকট হতে হাম্বলি মাযহাবে “সাধারণ ইজাজাহ” লাভ করেছেন। মাযহাবে সাধারণ ইজাজাহ বলতে বোঝায় উক্ত ব্যক্তি এখন নিজে মাযহাবের সকল শাখা এবং কিতাব শেখানো এবং পৌঁছানোর জন্যে সাধারণ যোগ্যতা অর্জন করেছেন। শাইখ সায়িদ আল …

শাইখ ড. সায়্যিদ আল-হাম্বলি Read More »

শাইখ মুতলাক আল-জাসির

শাইখ ড. মুতলাক আল জাসির আল-হাম্বলি শাইখ ড. মুতলাক আল জাসির বর্তমানে হাম্বলি তলিবদের কাছে একটু সুপরিচিত নাম। উনি কুয়েত ইউনিভার্সিটির তুলনামুলক ফিকহের একজন প্রফেসর এবং কুয়েতি মিনিসট্রি অফ রিলিজিয়াস এনডোমেন্ট-এর একজন ইমাম। শাইখের শিক্ষাজীবনঃ শাইখ কুয়েত ইউনিভার্সিটি থেকে ইসলামী শারিয়াতে ব্যাচেলর সম্পন্ন করেন। মিশরের কায়রো ইউনিভার্সিটি থেকে শারিয়ায় মাস্টার্স এবং জর্ডানের আল-ইয়ারমূক ইউনিভার্সিটি থেকে …

শাইখ মুতলাক আল-জাসির Read More »

শাইখ আমির বাহজাত

তাঁর পুরো নাম হচ্ছে- আমীর বিন মুহাম্মাদ ফিদা’ বিন মুহাম্মাদ আব্দুল মু’তি বাহজাত। শাইখের বয়স তেমন বেশি নয়, তিনি একজন মনোমুগ্ধকর আলিম এবং হানবালি মাযহাবে বিশেষজ্ঞ; ফিকহের জন্যে, বিশেষ করে হাম্বলি ফিকহের ব্যাপারে তার কাজ সৌদিতে ইল্মের সার্কেলগুলোতে বেশ সুপরিচিত। শাইখ বর্তমানে মদিনার তাইবা ইউনিভার্সিটির একজন প্রফেসর এবং মসজিদে নববির একজন শিক্ষকও বটে। হাম্বলির মাযহাবের …

শাইখ আমির বাহজাত Read More »

শাইখ আবদুল্লাহ ইবনে আকিল

শাইখ আব্দুল্লাহ ইবনে আকিল আল-হাম্বলি [রহিমাহুল্লাহ] নিচের ছবির ডানপাশের মানুষটি হচ্ছেন শাইখ আব্দুল্লাহ ইবনে আকিল রহিমাহুল্লাহ। তাকে অনেকে আমাদের সময়ের “শাইখুল হানাবিলা” বলেছেন। তিনি সৌদির প্রখ্যাত হাম্বলি আলিম শাইখ আব্দুর রহমান আস-সাদির অন্যতম ছাত্র ছিলেন। তিনি সৌদির ইমাম মুহাম্মাদ ইবনে সৌদ ইউনিভার্সিটি থেকে শিক্ষা লাভ করেন। তিনি সৌদিতে সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ছিলেন। ১৫ বছরের …

শাইখ আবদুল্লাহ ইবনে আকিল Read More »

তাঁর জ্ঞান এবং লেখনির ব্যপকতা-২ শাইখুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া

“ আশ্চর্য্যজনক একটি বিষয় হলো তাঁকে যখন প্রথমবারের মত মিশরে কারারুদ্ধ করা হয়, জেলে তাঁর নিজের কাছে কোন বই রাখা নিষিদ্ধ করে দেয়া হয়। কিন্তু এই সময়ও তিনি ছোট বড় বেশ কয়েকটি বই লিখেন যেসব বইয়ে তিনি বক্তব্যের প্রয়োজনে হাদিস, সাহাবিদের বক্তব্য, ‘আলিমদের বক্তব্য, হাদিসের ইমামদের নাম, বইয়ের লেখক এবং বইয়ের নাম, সেসব কারা বলেছেন …

তাঁর জ্ঞান এবং লেখনির ব্যপকতা-২ শাইখুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া Read More »

সাম্প্রতিক হাম্বলি আলিম- শাইখ ড. মুহাম্মাদ বাজাবির

ছবিতে যাকে দেখা যাচ্ছে, তিনি হলেন শাইখ ড. মুহাম্মাদ বিন আহমাদ বাজাবির।. শাইখ জন্মসূত্রে সৌদি। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে মক্কার উম্মুল কুরা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৪০৮ হিজরিতে অনার্স, মাদিনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৪১৪ হিজরিতে মাস্টার্স এবং উম্মুল কুরা থেকে ১৪২০ হিজরিতে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। এছাড়াও হারামাইনের শিক্ষকদের কাছে বিভিন্ন কিতাব শেষ করেন, যাদের মাঝে আছেন শাইখ বিন বায, ইবন …

সাম্প্রতিক হাম্বলি আলিম- শাইখ ড. মুহাম্মাদ বাজাবির Read More »

মামা-ভাগ্নে

শাইখ মুহাম্মাদ আল-খালওয়াতি (১০৮৮হি) পরবর্তী যুগের হাম্বলি ফিকহের অন্যতম ‘আলিম। হাম্বলি ফিকহের দুই মু’তামাদ কিতাব “আল-মুনতাহা” এবং “আল-ইক্বনা”র উপর লেখা তার হাশিয়াকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে দেখা হয়। এর অন্যতম কিছু কারণ হলো আরবি ভাষায় তার পান্ডিত্য, তার ফিকহি দক্ষতা এবং তার প্রিয় শিক্ষক ও মামার কাছ থেকে প্রশ্নের মাধ্যমে জেনে নেয়া অনেক উত্তর যা তিনি …

মামা-ভাগ্নে Read More »

চাচা-ভাতিজা

মুওয়াফফাক্ব আদ-দীন আবদুল্লাহ বিন আহমাদ ইবন কুদামাহ আল-মাক্বদিসি (৬২০হি)। মনে হয় না, ইমামের পরিচয় দেয়ার কোন দরকার আছে। উমদাতুল ফিকহ, আল-মুক্বনি, আল-কাফি এবং আল-মুগনির রচয়িতা একজন মুজতাহিদ ইমাম ছিলেন আল-মুওয়াফফাক্ব (রাহিমাহুল্লাহ)। শুধু হাম্বলি নয় বরং ফিকহুল ইসলামিতেই তিনি অবিস্মরণীয় হয়ে আছেন। উনার বড় ভাইও ছিলেন, অত্যন্ত বড় মাপের ‘আলিম। আবু উমার মুহাম্মাদ বিন আহমাদ ইবন …

চাচা-ভাতিজা Read More »

ভাই-ভাই

হাম্বলী ফিকহের প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের জন্য শাইখ ইবন বালবানের (১০৮৩হি) দু’টি বই আছে। শাইখ প্রথমে লিখেছিলেন “কাফি আল-মুবতাদি”; এরপর এটিকে আরো সংক্ষিপ্ত করে লিখেন “আখসার আল-মুখতাসারাত”। আখসারের শারহ করেছেন শাইখ আব্দুর রহমান বিন আব্দিল্লাহ আল-বা’লী (১১৯২হি) [বিদায়াতুল আবিদের লেখক], যার নাম “কাশফ আল-মুখাদ্দারাত”।  কাফি আল-মুবতাদিরও একটি শারহ আছে, নাম “আর-রাওদ্ব আন-নাদি”, করেছেন শাইখ আহমাদ বিন …

ভাই-ভাই Read More »