জানায়িয এবং মৃত্যু সম্পর্কিত বিধান

মৃতের জন্যে কুর’আন তিলাওয়াত করতে একত্রিত হওয়া

“বিভিন্ন অঞ্চল এবং সময়ের মুসলিমরা মৃতের জন্যে একত্রিত হত এবং কুর’আন তিলাওয়াত করত, কোনো সমলোচনা ব্যতীত।” -শাইখুল মাযহাব ইবনে কুদামাহ আল-মাকদিসি (র) [আল-মুগনি]

ইসালে সওয়াবের বিধান

ইবনে কায়্যিম বলেছেনঃ ইবাদাত দুই ধরণের, আর্থিক এবং শারীরিক। যখন হুকুমদাতা আমাদের জানিয়েছেন যে সাদকার সওয়াব মৃতের কাছে পৌঁছায়, তিনি ইঙ্গিত করেছেন যে আর্থিক ইবাদাত তাদের নিকট পৌঁছায়, এবং যখন তিনি আমাদের জানিয়েছেন যে, রোযার সওয়াব তাদের নিকট পৌঁছায়, তিনি ইঙ্গিত করেছেন যে শারীরিক ইবাদাত তাদের নিকট পৌঁছে। তিনি আমাদের আরও জানিয়েছেন যে, হজের সওয়াব …

ইসালে সওয়াবের বিধান Read More »

হারাম বা বিদআত : হাম্বালী অবস্থান – মুমূর্ষু ব্যক্তির নিকট ইয়া-সিন তেলাওয়াত

মুমূর্ষু ব্যক্তির নিকট ইয়া-সিন তেলাওয়াত করা বিদআত — এই মতটা ঢালাওভাবে হাম্বালীদের সাথে সম্পৃক্ত করা হয়। যদিও ইমাম আহমদ থেকে বর্ণিত নির্ভরযোগ্য বর্ণনা এবং মাযহাবের আলিমদের মত হলো, এটা মুস্তাহাব। আল-মুয়াফফাক আল-মুগনিতে, জানাযা অধ্যায়ে ইমাম আহমদ থেকে বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেন, “মুমূর্ষু ব্যক্তির নিকট উপস্থিত হলে তেলাওয়াত করবে, তেলাওয়াতের দ্বারা তাঁর থেকে (রুহ বের হওয়া) …

হারাম বা বিদআত : হাম্বালী অবস্থান – মুমূর্ষু ব্যক্তির নিকট ইয়া-সিন তেলাওয়াত Read More »

গায়েবানা জানাযার বিধান

প্রশ্নঃ  অন্য দেশে কেউ মারা গেলে (নিজ অঞ্চলে বসে) তার জানাযার সলাত পড়ার বিধান কি?  উত্তরঃ এমন নির্দিষ্ট ব্যক্তি যে অন্য কোনো অঞ্চলে(দেশে) মারা গেছে তার জন্য জানাযার সলাত পড়া একেবারেই অনুমোদিত। তারা(মৃত) মারা যাওয়ার এক মাস (পর) পর্যন্ত এটি করা যেতে পারে। এমনকি যদি তাদের এমন অঞ্চলে দাফন করা হয়, যে অঞ্চলের দূরত্ব কসরের …

গায়েবানা জানাযার বিধান Read More »

মৃত আত্মীয়কে কুর’আন তিলাওয়াতের সওয়াব দেওয়া

প্রশ্ন : আমি কি কুরআন তিলওয়াতের সাওয়াব আমার কোনো মৃত আত্মীয়কে উপহার দিতে পারব? উত্তর: মুসলিম কর্তৃক আদায়কৃত যে কোন ভালো আমলের সম্পূর্ণ  কিংবা অর্ধেক কোনো জীবিত বা মৃত মুসলিমের জন্য দান করলে, সেই সাওয়াব পৌঁছাবে। যদিও এই সাওয়াবের ধরণ অজানা। যেমন : নফল হজ, কুরআন তিলওয়াত, সালাত, সিয়াম এবং সদকা ইত্যাদি।  ইমাম আহমদ বলেন, …

মৃত আত্মীয়কে কুর’আন তিলাওয়াতের সওয়াব দেওয়া Read More »

কবর যিয়ারতকারী বা কবরের পাশ দিয়ে যাবার সময় দু’আ

মুসলিমদের কবর যিয়ারতকারী বা তার পাশ দিয়ে অতিক্রমকারী ব্যক্তির জন্য সুন্নাহ হলো বলা- السَّلَامُ عَلَيْكُمْ دَارَ قَوْمٍ مُؤْمِنِينَ (أَوْ أَهْلَ الدِّيَارِ مِنْ الْمُؤْمِنِينَ) وَإِنَّا إنْ شَاءَ اللَّهُ بِكُمْ لَلَاحِقُونَ وَيَرْحَمُ اللَّهُ الْمُسْتَقْدِمِينَ مِنْكُمْ وَالْمُسْتَأْخِرِينَ نَسْأَلُ اللَّهَ لَنَا وَلَكُمْ الْعَافِيَةِ ، اللَّهُمَّ لَا تَحْرِمْنَا أَجْرَهُمْ وَلَا تَفْتِنَّا بَعْدَهُمْ وَاغْفِرْ لَنَا وَلَهُمْ  আসসালামু আলাইকুম দারা কওমিন মু’মিনীন …

কবর যিয়ারতকারী বা কবরের পাশ দিয়ে যাবার সময় দু’আ Read More »